বৃহস্পতিবার , জুলাই ৯ ২০২০
Home / ফিচার / উপকূলের করোনাযোদ্ধা ৮ নারী

উপকূলের করোনাযোদ্ধা ৮ নারী

পানিমূল উপকূলে নিয়ত দুর্যোগ মোকাবেলায় লড়াই করে টিকে থাকতে হয়। এবার টানা দুই মাস ধরে জীবন নিরাপদ রাখার লড়াইটা চলে আসছে। সে লড়াই এক অদৃশ্য ঘাতক ভাইরাসের বিরুদ্ধে । সেই সাথে সাম্প্রতিক ঘূর্ণিঝড় আম্ফানের তাণ্ডবে লণ্ডভণ্ড উপকূলে আরও এক লড়াই যোগ হয়েছে।

করোনা আর আম্ফান গোটা উপকূলের মানুষকে দূর্গত করে দিয়েছে। করোনায় ঘরবন্দী জীবন সেই সাথে ঘূর্ণিঝড়ে বিপন্ন জনপদ। এমন সংকটের ভেতর জীবন বাঁচাতে কিছু মানুষ জীবন বাজি রেখে লড়ে যাচ্ছেন। আমরা হয়তো এখন অনুভব করছি। আমরা হয়তো কিছু মানুষের অবিরাম লড়ে যাওয়া সময়ের ছবি গুলোতে দেখছি।

একবার ভেবে দেখুন শুধু পুরুষ নয় লড়ছে কিছু নারী। তারা এক একজন যে যার কমিউনিটিতে সফল আর ভিষণ রকমের দায়িত্বশীল ভূমিকা রেখে চলেছেন। আমরা তাঁদের জীবনের ভেতরের জীবন সংকটের আখ্যানটা জানিনা। নিজেরা জীবনে কত না জানি সংকটে আছেন। সেই সব তুচ্ছ করে কেবল মানুষকে নিরাপদ রাখতে এক একটা জনপদে তারা এ করোনা আর আম্ফানের দুর্যোগে যোদ্ধার মতোন অবিরাম বিপন্ন মানুষের কাছে যাচ্ছেন। তাদের পাশে দাড়াচ্ছেন। সেই সাথে উপজেলা প্রশাসনের দপ্তর সামলাচ্ছেন নিবেদিতভাবে।

মানুষের জীবনের সংকটে কিছু মানুষকে জীবনবাজি রেখে ঝুঁকি নিয়ে লড়াইটা চালাতে হয়। শুধু দায়িত্বই নয় এই মহতী নারীরা ভিষণ রকমের সংবেদনশীল মানুষ বলেই বিপন্ন মানুষেরা আশার আলো নিয়ে বাঁচেন।
আমাদের সমাজ সভ্যতা এগিয়ে নিতে এই মহতী নারীদের অবদান কম নয়। আমি তাঁদের সম্মান জানাই। নতজানু হই যখন দেখি নিজের চার মাসের শিশু ঘরে রেখে কোনও নারীকে মধ্যরাত অবধি দুর্গত উপকূল চষে বেড়াতে হয়। যখন দেখি কোনও নারী মা।

আমি এ সংকটময় উপকূলে আট প্রশাসনিক নারী কর্মকর্তার প্রতিদিনের লড়াই সময়ের ছবিগুলো দেখছি। আমি মহতী নারীদের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানাই। যারা দেশ ও মানুষের জন্য নিবেদিত হয়ে অবিরাম কাজ করে যাচ্ছেন। উপকূলীয় বরিশাল, পিরোজপুর, ঝালকাঠি , পটুয়াখালী ও বরগুনার সাত উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এ সংকটময় সময়ের অনন্য মুখ।

পিরোজপুরের কাউখালী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা খালেদা খাতুন রেখা, মঠবাড়িয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ঊর্মী ভৌমিক, ঝালকাঠির নলছিটি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রুম্পা সিকদার,বরগুনার বামনা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সাবরিনা সুলতানা, বরিশালের বাকেরগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার মাবধী রায় ও পটুয়াখালী দশমিনা উপজেলা নির্বাহী অফিসার তানিয়া ফেরদৌস,আমতলী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মনিরা পারভীন ও পটুয়াখালী সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা লতিফা জান্নাতি ।

এই আট নারী উপকূলের করোনাযোদ্ধা। যারা জীবনের ঝুঁকি নিয়ে করোনা সংক্রমনরোধে ও আম্ফানে দুর্গত জনপদে অবিরাম ছুটছেন।

মহতী এ আট নারীর নিরাপদ জীবনের জন্য প্রার্থনা জানাই। সেই সাথে তাঁদের লড়াইয়ের প্রতি সম্মান জানাই।

আসুন সংকটে আমরা মহতী নারীর চোখে সময়টাকে একবার অন্তত দেখি।

 

 

লিখেছেন- দেবদাস মজুমদার

আরও পড়ুন

মাশরাফি-করোনা

আরও একবার লেখা হোক আপনার যুদ্ধ জয়ের গল্প

ফিচার: প্রথম প্রথম খুব চমকে উঠতাম। এখন গা সওয়া হয়ে গেছে। তখন ভাবতাম, কোথায় কোন …