বুধবার , অক্টোবর ২৮ ২০২০
Home / বিনোদন / ফিরছেন বলিউড মাতানো অভিনেত্রী মাধুরী দীক্ষিত
মাধুরী দীক্ষিত

ফিরছেন বলিউড মাতানো অভিনেত্রী মাধুরী দীক্ষিত

বেশ উৎসাহ নিয়ে কাজটি শুরু করেছিলেন। অংশ নিয়েছিলেন শুটিংয়েও। কিন্তু করোনার আক্রমণ শুরু হলে লকডাউন নেমে আসায় সব স্থগিত হয়ে যায়। তবে পরিস্থিতি উন্নত হওয়ায় অনেকে কাজে ফিরছেন। এবার ফিরতে চলেছেন বলিউড মাতানো অভিনেত্রী মাধুরী দীক্ষিত।

জনপ্রিয় ওয়েব স্ট্রিমিং প্লাটফর্ম নেটফ্লিক্সের জন্য একটি সিরিজ নির্মাণ করতে চলেছেন বিখ্যাত প্রযোজক-পরিচালক করণ জোহর। তার ধর্ম প্রোডাকশন এটি নির্মাণ করবে। সেখানে কেন্দ্রীয় চরিত্রে থাকবেন মাধুরী।

করোনার প্রকোপ কাটিয়ে এ অভিনেত্রী শিগগিরই যোগ দিচ্ছেন শোটিতে। টানা ১৫ দিন শুটিং করে শেষ করবেন তার অংশের কাজ। এটি দিয়ে নেটফ্লিক্স তো বটেই, ডিজিটাল প্লাটফর্মের জন্যই প্রথমবার অভিনয় করতে যাচ্ছেন মাধুরী।

এর আগে তিনি নেটফ্লিক্সের জন্য ‘ফিফটিন্থ আগস্ট’ নামে একটি ছবি প্রযোজনা করেছেন। সেই সঙ্গে ‘মোংলি’ নামে একটি সিরিজে নিশা নামের চরিত্রের জন্য কণ্ঠও দিয়েছেন মাধুরী।

জানা গেছে, করণ প্রযোজিত নেটফ্লিক্সের ‘নাশিক’ নামের সিরিজটিতে দেখা যাবে শাবিজের মানুষদের জীবনযাপনের গল্প। তারকাদের পারিবারিক জীবনগুলো কেমন হয়, তাদের দিনযাপনের নানা চিত্র ফুটে উঠবে এখানে।

১৯৮৪ সালে ‘অবোধ’ চলচ্চিত্রের মাধ্যমে চলচ্চিত্রে অভিষেক ঘটে। তখন তেমন সাড়া ফেলতে না পারলেও চার বছর পর ‘তেজাব’ ছবির মাধ্যমে দর্শক মহলে বেশ সাড়া পান। অভিনয়ের পাশাপাশি সহজাত সৌন্দর্য এবং নাচে দক্ষতার কারণে খুব দ্রুত বি-পাড়ার শীর্ষস্থানেও উঠে আসেন।

নব্বই দশকের পুরোটা সময় হিন্দি সিনেমায় অভিনেত্রী ও শীর্ষস্থানীয় নৃত্যশিল্পী হিসেবে একচ্ছত্রাধিপত্য করেছেন। ক্যারিয়ারে শেষদিকে শাহরুখ খানের সঙ্গে ‘দেবদাস’-এ ‘মার ডালা’ গানে তার নাচ আজও সমালোচকদের চোখের প্রশান্তি।

১৯৬৭ সালের ১৫ মে মুম্বাইয়ের মারাঠি ব্রাহ্মণ পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন এই গুণী অভিনেত্রী। পিতার নাম শঙ্কর ও মাতা স্নেহলতা দীক্ষিত। চার ভাইবোনের মধ্যে সবার ছোট মাধুরী মাইক্রোবায়ালোজিস্ট হতে চেয়েছিলেন। পড়াশোনা করেছেন ডিভাই চাইল্ড হাই স্কুল এবং মুম্বাই বিশ্ববিদ্যালয়ে। কত্থক নৃত্যশিল্পী হিসেবে আট বছরের প্রশিক্ষণও রয়েছে তার ঝুলিতে।

চলচ্চিত্রে অংশগ্রহণ ‘দিল’ ছবির ব্যবসায়িক সাফল্য অনুসরণ করে সাজন (১৯৯১), বেটা (১৯৯২), খলনায়ক (১৯৯৩), হাম আপকে হে কৌন (১৯৯৪) এবং রাজা (১৯৯৫) বিপুল জনপ্রিয়তা অর্জন করে। ‘বেটা’ ছবিটি তাকে সেরা অভিনেত্রীর আসনে বসিয়ে ২য় বারের মতো ফিল্মফেয়ার পুরস্কার জিতিয়ে দেয়। এ ছাড়া ‘হাম আপকে হে কৌন’ ছবিটি হিন্দি সিনেমার ইতিহাসে বৃহত্তম ব্যবসায়িক সাফল্য অর্জন করে।

হিন্দি সিনেমায় অনবদ্য ভূমিকার জন্য ২০০৮ সালে ভারত সরকারের ৪র্থ সর্বোচ্চ বেসামরিক পুরস্কার হিসেবে তাকে পদ্মশ্রী পুরস্কারে ভূষিত করা হয়। ১৯৯৯ সালে মাধুরী মারাঠি ব্রাহ্মণ পরিবারের সন্তান ক্যালিফোর্নিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের কার্ডিওভাসকুলার সার্জন শ্রীরাম মাধব নেনে-কে বিয়ে করেন। দুই পুত্র আরিন (জন্ম ২০০৩) এবং রায়ান (২০০৫, কলোরাডো) নিয়ে এখন বেশ ঘর সংসার করছেন।

ভারতে তার অগণিত ভক্ত-সমর্থকে দাবির প্রেক্ষিতে ২০১০ এর শেষদিকে একটি টেলিভিশন নৃত্যানুষ্ঠানে তিনি সামাজিক নেটওয়ার্কিং সাইট টুইটারে যোগ দেন।

অনেকদিন বলিউড থেকে দূরে থাকলেও এখনো তাকে বলিউডের সেরা অভিনেত্রীদের একজন হিসেবে গণ্য করা হয়। বিশেষ করে নাচে তার অনবদ্য অবদানের জন্য।

 

 

কেএন/দুর্বার

আরও পড়ুন

আলোচনায় স্বস্তিকা

৪৫ সেকেন্ডের ভিডিওতে আলোচনায় স্বস্তিকা

নারী-পুরুষের দুটো শরীর। একে অপরকে আষ্টেপৃষ্ঠে বেঁধে রেখেছে ভালবাসার আলিঙ্গনে। এ কি প্রেম নাকি পাগলামি? …