শুক্রবার , নভেম্বর ২৭ ২০২০
Home / সারাদেশ / বরিশাল / বরগুনা / ইউপি চেয়ারম্যান কতৃক টাকা আত্মসাতের অভিযোগে সংবাদ সম্মেলন

ইউপি চেয়ারম্যান কতৃক টাকা আত্মসাতের অভিযোগে সংবাদ সম্মেলন

নিজস্ব প্রতিবেদক: বরগুনার বামনা উপজেলার ৪ নং ডৌয়াতলা ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মিজানুর রহমানের বিরুদ্ধে টাকা আত্মসাতের অভিযোগ এনে সংবাদ সম্মেলন করেছে মোসাঃ রিমা (২৫) নামের এক নারী।

রবিবার (১৫ নভেম্বর) দুপুর ১২ টায় বরগুনা সাংবাদিক ইউনিয়নের সম্মেলন কক্ষে এই সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়।

মোসাঃ রুমা লিখিত বক্তব্যে বলেন, আমার স্বামী মােঃ কালাম জোমাদ্দার ওমানে প্রবাসী শ্রমিক হিসেবে কাজ করা অবস্থায় গত ৩১ মে ২০১৬ তারিখে সড়ক দূর্ঘটনায় মৃত্যু বরণ করেন। আমার স্বামী আমার গর্ভে ১টি ৭ বছরের প্রতিবন্ধী পুত্র সন্তান রেখে যান। ওমানে সড়ক দূর্ঘটনায় একটি মামলা হয়, উক্ত মামলা পরিচালনা করেন তার খালু মােঃ স্বপন। যার খরচ আমি আমার বাবার কাছ থেকে ধার করে মােঃ স্বপনকে দেই।

পরে ওই সড়ক দূর্ঘটনায় মামলায় আসামী পক্ষ অব্যহতি পাওয়ার আপােষ শর্তে বাংলাদেশী ত্রিশ লক্ষ টাকা জরিমানা প্রদান করেন। উক্ত টাকার মূল দাবীদার আমি, আমার পুত্র সন্তান মােঃ ইব্রাহিম এবং শাশুরী। আমার স্বামী যে ওমানে কোম্পানীতে চাকুরী করতাে এবং সড়ক দূর্ঘটনার মামলা আসামী পক্ষকে ভূল বুঝাইয়া, ভুল তথ্য দেয় যে, মােঃ কালাম জোমাদ্দার এর স্ত্রী তাহার পুত্র সন্তান নিয়া অন্যত্র বিবাহ করেছে। কিন্তু আমি অদ্যবধি ২য় বিয়ে করিনাই।

শাশুরী, স্বপন এবং ৪নং ডৌয়াতলা ইউপি চেয়ারম্যান মােঃ মিজানুর রহমান একত্রিত হইয়া টাকা আত্মসাৎ করার উদ্দেশ্যে অত্র ইউপি চেয়ারম্যান মােঃ মিজানুর রহমান এর একাউন্টে নিয়ে আসে। যাহা ইউ,পি চেয়ারম্যান মােঃ মিজানুর রহমান টি,এন,ও এবং বামনা থানার ওসির নিকট স্বীকার করেন।

তাই তাহাদের বিরুদ্ধে একটি মােকদ্দমা দায়ের করি।
টাকার সংবাদ পেয়ে চেয়ারম্যানের কাছে যাওয়া হয়, সে কোন গুরুত্ব না দেওয়ায় জেলা প্রশাসক ও এমপি
মহােদয় বরাবর অভিযােগ দেওয়া হয়। পরে জেলা প্রশাসক মহােদয় বামনা ইউএনও কে নিদের্শ দেন।
বামনা ইউ এন ও মহােদয়ের সম্মুখে চেয়ারম্যান সতের লাখ পঞ্চাশ হাজার টাকার কথা স্বীকার করেন।

কিন্তু তাতেও কোন শুরাহ না পেয়ে পুলিশ সুপার বরাবরে আবেদন করি, পুলিশ সুপার মহােদয় বামনা থানায় প্রেরণ করেন। থানায় একাদিক বৈঠক হলেও কোন ফয়সালা হয়নি। অতঃপর আমি বিজ্ঞ আদালতে মােকদ্দমা দায়ের করি। বর্তমানে বিজ্ঞ আদালত ডিবি অফিসার ইনচার্জ হারুন অর রশিদ এর উপর তদন্ত ভার অপর্ণ করেন। কিন্তু তাতেও এখন পর্যন্ত কোন প্রতিকার না পেয়ে আমরা বরগুনা সাংবাদিক ইউনিয়নে সংবাদ সম্মেলন করতে আসি।

তিনি আরোও বলেন, বর্তমানে উক্ত মামলা বিবাদীরা আমাকে আমার সন্তানসহ নিকট আত্মীয় স্বজনকে খুন করে লাশ গুম করে ফেলার হুমকি প্রদান করছে। এমতাবস্থায় আমার এবং আমার প্রতিবন্ধী সন্তানের জীবন হুমকির মুখে।

স্বামীর ওয়ারিশ হিসেবে যাতে ন্যায্য পাওনা এবং বিবাদীদের খুন জখমের হুমকি কবল থেকে রেহাই পেয়ে সুষ্ঠ সমাধান পেতে পারে তার জন্য সকলের সহযোগিতা কামনা করছে রুমা।

 

 

কেএন/দুর্বার

আরও পড়ুন

বেতাগী পৌর নির্বাচন: নানান নাটকীয়তার পর মনোনয়ন প্রত্যাশীদের চুড়ান্ত তালিকা

নিজস্ব প্রতিবেদক: ২৫ নভেম্বর বেতাগী পৌর আওয়ামী লীগের এক বিশেষ বর্ধিত সভা বেতাগী গার্লস স্কুল …